1. admin@banglabahon.com : Md Sohel Reza :
কাঙ্ক্ষিত পরিবর্তন আনতে পারিনি: ইমরান খান
মঙ্গলবার, ২১ মে ২০২৪, ০৬:০৬ পূর্বাহ্ন

কাঙ্ক্ষিত পরিবর্তন আনতে পারিনি: ইমরান খান

নিজস্ব প্রতিবেদক
  • প্রকাশ: শনিবার, ১২ ফেব্রুয়ারী, ২০২২
পাকিস্তানের সাবেক প্রধানমন্ত্রী ইমরান খান।- ফাইল ছবি

২০১৮ সালের জাতীয় নির্বাচনের আগে দেশে ‘বৈপ্লবিক পরিবর্তন’ আনার যে প্রতিশ্রুতি জনগণকে দিয়েছিলেন, তা সফল হয়নি বলে স্বীকার করেছেন পাকিস্তানের প্রধানমন্ত্রী ইমরান খান।

এই স্বীকারোক্তির পাশাপাশি অভিযোগ করে তিনি বলেছেন, পাকিস্তানের আমলাতন্ত্রের গতানুগতিকতা ও আইনপ্রণেতাদের জনবিচ্ছিন্নতাই এ জন্য দায়ী।

শুক্রবার রাজধানী ইসলামাবাদে এক সরকারি অনুষ্ঠানে নিজ নিজ দায়িত্বে সফল ১০ মন্ত্রীকে পুরস্কার ও সনদপত্র প্রদান করেন ইমরান খান। সেই অনুষ্ঠানে দেওয়া ভাষণে পাকিস্তানের প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘ক্ষমতায় আসীন হওয়ার প্রথম পর্যায়ের দিনগুলোতে পাকিস্তানের সার্বিক উন্নয়নের জন্য বিভিন্ন বৈপ্লবিক উদ্যোগ আমরা নিয়েছিলাম; কিন্তু ধীরে ধীরে বুঝতে পারলাম- নতুন পদক্ষেপ বা উদ্যোগের সঙ্গে খাপ খাইয়ে নেওয়ার মতো সক্ষমতা আমাদের আমলাতন্ত্রের নেই।’

‘সবেচেয়ে বড় সমস্যা হলো— দেশের জাতীয় স্বার্থের সঙ্গে সরকারের কোনো সংযোগ নেই; আর এজন্য আমলাতন্ত্র যেমন দায়ী, তেমনি দায়ী নির্বাচিত জনপ্রতিনিধিরাও।’

‘দারিদ্র্য দূর করা ও রফতানির পরিমাণ বাড়ানো জাতীয় অগ্রগতির অন্যতম পূর্বশর্ত; কিন্তু আমাদের মন্ত্রীরা কি এই শর্ত পূরণে গত চার বছরে তাদের সর্বোচ্চটা দিয়েছেন? কীভাবে এই দেশের উন্নতি ঘটবে?’

‘আমরা কাঙ্ক্ষিত পরিবর্তন আনতে পারিনি।’

বিশ্ব ক্রিকেটের সর্বকালের অন্যতম সেরা ক্রিকেটার ও পাকিস্তানের একমাত্র বিশ্বকাপজয়ী ক্রিকেট অধিনায়ক ইমরান খানের রাজনৈতিক জীবন শুরু হয় গত শতকের শেষ দিকে, ১৯৯৬ সালে। ওই বছরই তিনি প্রতিষ্ঠা করেন নিজের রাজনৈতিক দল ‘পাকিস্তান তেহরিক-এ-ইনসাফ’ (পিটিআই)। দল গঠনের ৫ বছরের মধ্যেই, ২০০২ সালের জাতীয় নির্বাচনে একটি আসনে জয় পেয়েছিল এই দলটি।

তারপর নানা চড়াই-উৎড়াই পেরিয়ে ২০১৮ সালে নির্বাচনে জয়ী হয়ে সরকার গঠন পিটিআই। কিন্তু তার শাসনামলেই পাকিস্তানের অর্থনৈতিক সমস্যা দিন দিন প্রকট হয়ে উঠেছে।

বর্তমানে বিশ্বের সবচেয়ে বেশি ঋণগ্রস্ত দেশগুলোর মধ্যে পাকিস্তান অন্যতম। পাশাপাশি, দেশটিতে হু হু করে বাড়ছে নিত্য ব্যবহার্য দ্রব্যের মূল্য। পাকিস্তানের কনজ্যুমার প্রাইস ইনডেক্স বা সিপিআই সূচক অনুযায়ী, গত এক বছরে দেশটিতে নিত্য প্রয়োজনীয় দ্রব্যের দাম বেড়েছে ১৩ শতাংশ। গত ডিসেম্বরে দেশটিতে মুদ্রাস্ফীতির হার ছিল ১২ দশমিক ৩ শতাংশ।

এছাড়া দেশেটির বিদ্যুৎ উৎপাদনে গুরুতর ঘাটতি দেখা দিয়েছে। চাহিদার তুলনায় বিদ্যুতের উৎপাদন কম হওয়া মারাত্মকভাবে ব্যহত হচ্ছে দেশটির শিল্পোৎপাদন।

সূত্র: ডন

শেয়ার করতে চাইলে...

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এই বিভাগের আরও সংবাদ...
© বাংলা বাহন সকল অধিকার সংরক্ষিত ২০১৯-২০২৪।
ডিজাইন ও আইটি সাপোর্ট: বাংলা বাহন
error: Content is protected !!